ইদ, ইগো আর সুপার ইগো

egoমন রহস্যময়, আর এই রহস্যময় মনের ভিতর থাকে ইদ, ইগো আর অল্টার ইগোর অবস্থান।
ইদ বলতে সহজাত প্রবৃত্তিকে বুঝানো হয়, তবে এর মধ্যে নানা কুপ্রবৃত্তিও থাকে যেমনঃ লোভ, কাম, ক্রোধ হিংসা ইত্যাদি। ইদ এই প্রবৃত্তিগুলোকে চরিতার্থ করে আত্মতৃপ্তি পেতে চায়। এই ইদ কোন নীতি মানেনা আর তার চিন্তা ভাবনাও এলোমেলো — মূলত এই এলোমেলো চিন্তাগুলোকে একত্রিত করে বাস্তবের সাথে মিলিয়ে চরিতার্থ করাই হল ইগো।
যেমন ধরা যাক ষড় রিপুর মধ্যে অন্যতম লোভের কথা, এটি ইদের অংশ। তো দোকানে গিয়ে যদি রসগোল্লা দেখে খাওয়ার লোভ হয়, তাহলে যাদের মনে ইদের প্রভাব বেশী,তারা চুরি করে রসগোল্লা খেতে চাইবে, আর যাদের মনে ইদের চেয়ে ইগো শক্তিশালী, তারা চাইবে উপার্জন করে সেই মিস্টি বা রসগোল্লা কিনতে ।

এই ইদ আর ইগোর উপরে আছে সুপার ইগো যাকে আমরা বিবেক বলে থাকি, তো এই সুপার ইগো যাদের মধ্যে বেশী তারা ভাববে ” হে বৎস লোভ সংবরন কর, নিজেকে সামলাও।টাকা থাকলেই যে পেট পুরে রসগোল্লা খেতে হবে তার কোন মানে নেই।” তো যাদের মধ্যে এই সুপার ইগোর ভাব বেশী তারা সততা, নীতিবোধ, মানবিকতাকে মূল্য দেয় বেশী।
হিটলারের কাছে মানবিক কোন মূল্য ছিলনা, তিনি ছিলেন ইদের দ্বারা চালিত, কিন্ত মহাত্মা গান্ধী ছিলেন সুপার ইগো দ্বারা চালিত।

“ওঠো, জাগো–যতক্ষন না তোমার লক্ষে পৌছাচ্ছ, থেমোনা”–উপনিষদ

তথ্যসূত্রঃ ইস্কুলে যা পড়ানো হয়না (ডঃ পার্থ চট্টোপাধ্যায়)

আরো পড়ুন

রবীন্দ্রনাথের প্রথম রেলভ্রমনের অভিজ্ঞতা –পর্ব ২

জগতের সকল রমণী তোমার ……

খুঁতখুঁতে রবীন্দ্রনাথ-৩

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: